সেন্টমার্টিনে যেতে মানা

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০১:৩০ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০২১

কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু না হওয়া পর্যন্ত ট্রলার কিংবা স্পিডবোটে করে পর্যটকরা সেন্টমার্টিন যেতে পারবেন না বলে নিষেধজ্ঞা জারি করেছে প্রশাসন । পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সেন্টমার্টিনে পর্যটক পরিবহন বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২০ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সময় নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পারভেজ চৌধুরী।

তিনি বলেন, পর্যটন মৌসুমে একটি নির্ধারিত সময়ে সেন্টমার্টিন পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। কিন্তু উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্তটি এখনো হয়নি। উন্মুক্ত করার আগ পর্যন্ত পর্যটকদের জন্য সেন্টমার্টিনে ভ্রমণ বন্ধ থাকবে। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত কোনো পর্যটক ট্রলার কিংবা স্পিডবোটে করে সেন্টমার্টিন যেতে পারবেন না। সম্প্রতি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কারণে সেন্টমার্টিন পর্যটক পরিবহনের বিষয়টি কঠোর নজরদারি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। 

ইউএনও বলেন, কোস্টগার্ডসহ সকল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি দেখভাল করবে। যাতে কোনো পর্যটক জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেন্টমার্টিন যেতে না পারে। সংশ্লিষ্ট সকলকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। 

এদিকে, বুধবার সকালে টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়া ঘাটে টিকিট কাউন্টারের সামনে পর্যটকদের ভিড় দেখা যায়। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটকরা কাঠের ট্রলারে করে সেন্টমার্টিনে যাওয়ার জন্য ভিড় করছিলেন। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় কোনো পর্যটককে টিকিট দেওয়া হয়নি। ফলে পর্যটকেরা সেন্টমার্টিনে যেতে পারেননি। 

টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়া ঘাটে ইজারাদারের টোল আদায়কারী মো. জোবায়ের বলেন, স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় কোনো পর্যটকের কাছে সেন্টমার্টিনের টিকিট বিক্রি করা হয়নি। ফলে কোনো পর্যটক সেন্টমার্টিনে যেতে পারেননি। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত পর্যটক পরিবহন বন্ধ থাকবে। 

কোস্টগার্ড টেকনাফ স্টেশন জানিয়েছে, উপজেলা প্রশাসন থেকে মৌখিকভাবে বলেছে- কোনো পর্যটক ট্রলার কিংবা স্পিডবোটে করে সেন্টমার্টিন যেতে না পারে। এরপর থেকেই সেন্টমার্টিন না যেতে পর্যটকদের নিরুৎসাহিত করছে কোস্টগার্ড। কারণ সাগর উত্তাল, তার ওপর ট্রলার কিংবা স্পিডবোটে করে সেন্টমার্টিন গেলে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই পর্যটকদের বুঝিয়ে সেন্টমার্টিন না যেতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। 

এদিকে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ চৌধুরী বলেন, কবে নাগাদ টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল শুরু হবে এটা এখনো বলা যাচ্ছে না। জাহাজ কর্তৃপক্ষ যোগাযোগ করেছিল। জেটি ঘাটটি ঝুঁকিপূর্ণ এবং জরাজীর্ণ। তাই আগে জেটি ঘাটটি মেরামত করতে হবে। তারপরই জাহাজ চলাচলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। 

শনিবার টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়া ঘাট থেকে ট্রলার ও স্পিডবোটে করে তিন শতাধিক পর্যটক রাত্রিযাপনের জন্য সেন্টমার্টিনে যান। এরপর দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া কারণে তিন দিন নৌপথে সার্ভিস ট্রলার চলাচল বন্ধ থাকায় তারা আটকা পড়েছিলেন। পরে তারা মঙ্গলবার ১০টি ট্রলারে সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফ পৌঁছান। এরপর যে যার গন্তব্যে চলে গেছেন।


আরও পড়ুন