পাচারকৃত অর্থ উদ্ধারের আইনি কার্যক্রম চলমান রয়েছে: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত: জানুয়ারী ২৪, ২০২৩, ০৮:৪২ রাত
আপডেট: জানুয়ারী ২৪, ২০২৩, ০৮:৪২ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, অর্থপাচারের কিছু সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে পাচারকৃত অর্থ উদ্ধারের আইনি কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে এ সংক্রান্ত প্রশ্নটি উত্থাপন করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্য (এমপি) লুৎফুন নেসা খান।

বিদেশে ফ্ল্যাট বা বাড়ি ক্রয় অথবা অন্য কোনো পদ্ধতিতে অর্থ পাচার বিষয়ক বেশকিছু মামলা বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তাধীন রয়েছে।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) পাচারকারী বা পাচারকৃত অর্থের বিষয়ে বিদেশি আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা থেকে তথ্য সংগ্রহ করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), বাংলাদেশ পুলিশের সিআইডি ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থায় তা সরবরাহ করে থাকে।

লিখিত জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) কর্তৃক পাচার সংশ্লিষ্ট বেশকিছু মামলা চলমান রয়েছে। বিএফআইইউ আইনের বিধান অনুযায়ী অর্থ পাচার সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ বা তথ্য প্রাপ্ত হলে গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রণয়ন করে তা সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী সংস্থায় পাঠায়। বিএফআইইউ থেকে গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী সংস্থা অনুসন্ধান ও তদন্তকার্য সম্পাদনপূর্বক প্রয়োজনীয় বিচারিক প্রক্রিয়া গ্রহণ করে থাকে বলে জানান তিনি।

একই প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের শিডিউলভুক্ত অপরাধের মাধ্যমে অর্জিত অর্থ বিদেশে পাচার করার ঘটনা দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক এবং বৈদেশিক বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্থ বিদেশে পাচার করার ঘটনা বর্তমানে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক তদন্ত করা হয়ে থাকে। এছাড়া হুন্ডি বা অন্য কোনো উপায়ে অর্থ পাচার হলে তা বাংলাদেশ পুলিশের সিআইডি কর্তৃক তদন্ত করা হয়ে থাকে।

অর্থপাচার রোধ এবং পাচারকৃত অর্থ বাংলাদেশে ফেরত আনার বিষয়ে সরকার বদ্ধ পরিকর এবং এ লক্ষ্যে সরকারের সব সংস্থা একযোগে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, অর্থপাচার ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ২০১২ সালে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন জারি করা হয় এবং পরবর্তীতে ২০১৫ সালে আইনটির বিভিন্ন ধারা সংশোধন করা হয়। আইনের বিভিন্ন ধারা সংশোধনের মাধ্যমে অর্থ পাচার ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধের কার্যক্রমকে আরও জোরদার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আইনের বিধান অনুসারে বৈধ বা অবৈধ উপায়ে অর্জিত অর্থ বা সম্পত্তি নিয়ম বহির্ভূতভাবে বিদেশে পাচার মানিলন্ডারিং অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বিদেশে পাচারকৃত সম্পদ বাংলাদেশে ফেরত আনার লক্ষ্যে গঠিত টাস্কফোর্স পাচারকৃত অর্থ পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

আইএমএফ থেকে এখনো কোনো ঋণ পাওয়া যায়নি সরকারি দলের এমপি হাবিবর রহমানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থ বছরে (২০২২-২৩) আইএমএফ (আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল) থেকে এখন পর্যন্ত কোনো ঋণ পাওয়া যায়নি। একটি ঋণের বিষয়ে আইএমএফ’র সঙ্গে আলোচনা চলমান রয়েছে।

তিনি বলেন, চলতি অর্থ বছরে বিশ্বব্যাংক থেকে ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ পাওয়া গেছে। এ ঋণ পাঁচ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৩০ বছরে পরিশোধযোগ্য।

একই দলের এম আব্দুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নে চলতি অর্থ বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত জাপান সরকার ৯২১ দশমিক ৬১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড় করেছে।

কৃষি ঋণের সুদ মওকুফের কোনো পরিকল্পনা নেই সংরক্ষিত আসনের সদস্য নাজমা আকতারের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, কৃষি ঋণের সুদ মওকুফের কোনো পরিকল্পনা নেই। কারণ ব্যাংক আমানতকারীদের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থ দিয়ে কৃষকদের ঋণ দেয়। আমানতকারীদের ব্যাংকের সুদ দিতে হয় বলে প্রচলিত নিয়মে ব্যাংকের পক্ষে কৃষকদের মধ্যে দেওয়া ঋণের সুদ মওকুফ করা সম্ভব হয় না।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য (এমপি) সৈয়দ আবু হোসেনের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, গত অর্থ বছরে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় কর রাজস্ব কম আদায় হয়েছে। কোভিড পরবর্তী অর্থনৈতিক মন্দা, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ, বিশ্বব্যাপী মুদ্রা নীতি ও ব্যয় সংকোচন নীতি ইত্যাদি কারণে কাঙ্ক্ষিত রাজস্ব আদায় কিছুটা ব্যর্থ হয়েছে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আব্দুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে ডলার সংকট কমাতে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা সংসদে তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ডোমেস্টিক ব্যাংকিং ইউনিটকে (স্থানীয় ব্যাংক) তাদের অফশোর ব্যাংকিং অপারেশন থেকে বৈদেশিক মুদ্রা তহবিল সংগ্রহের প্রাধিকার দেওয়া হয়েছে, যা আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

তিনি আরও বলেন, রমজান মাসে ভোজ্যতেল, ছোলা, ডাল, মটর, পেঁয়াজ, মসলা, চিনি ও খেজুরের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখাসহ পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিতকল্পে এসব পণ্য ৯০ দিনের বিলম্ব মূল্য পরিশোধ ব্যবস্থায় আমদানির সুযোগ দেওয়া হয়েছে। যা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। চীনের সঙ্গে বাণিজ্য সহজীকরণের লক্ষ্যে উক্ত দেশের মুদ্রার সঙ্গে লেনদেনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়