গণফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সভা 

‘নির্বাচন আসলেই জোট গঠনে হুলস্থুল শুরু হয়’

প্রকাশিত: মে ১৪, ২০২২, ০৮:৩৭ রাত
আপডেট: মে ১৪, ২০২২, ০৮:৩৮ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : গণফোরামের একাংশের সভাপতি মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেছেন, জাতীয় নির্বাচন যখন ঘনিয়ে আসে কেউ কেউ রাজনৈতিক জোট বা মোর্চার জন্য হুলস্থুল শুরু করে। নির্বাচন সামনে রেখে জোট হবে, কিন্তু বর্তমান সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন হলে সেখানে সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই। তাই আমরা গণফোরাম নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের লক্ষ্যে রাজনৈতিক জোটের পাশাপাশি জনতার ঐক্য গড়ে তুলতে সচেষ্ট থাকব। 

আজ শনিবার (১৪ মে) সকালে সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে গণফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় সভাপতির স্বাগত বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। 

মন্টু তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, দলীয় সরকারের অধীনে দেশে কোনো নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। এই সেন্টিমেন্টের সঙ্গে দেশের জনগণ ঐক্যবদ্ধ আছে।

সভায় লিখিত বক্তব্যে গণফোরামের একাংশের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চৌধুরী বলেন, দলীয় সরকারের অধীনে বাংলাদেশে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়। সেই লক্ষ্যেই জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করা এবং নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিতে রাজপথের আন্দোলনে শরিক থাকার অঙ্গীকার ব্যক্ত করছে গণফোরাম। 

দলটির নির্বাহী সভাপতি ও সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ বলেন, ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা নেই। বিশেষভাবে বলতে চাই- এই আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনেও কোনো অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের সুযোগ নেই। অতএব আপনারা ইভিএম পদ্ধতি নিয়ে কথা না বলে নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর বা পদত্যাগ নিয়ে ভাবুন। দেশের জনগণ আপনাদের বিশ্বাস করে না। তাই আপনাদের নিয়ন্ত্রণে কোনো নির্বাচনে দেশের জনগণের অংশগ্রহণের প্রশ্নই আসে না।

গণফোরামের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লতিফুল বারী হামিমের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন-দলটির নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম জগলুল হায়দার আফ্রিক, অ্যাডভোকেট মহসীন রশিদ, অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের; সভাপতি পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনসার খান, অ্যাডভোকেট ফজলুল হক সরকার, আব্দুল হাসিব চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা খান সিদ্দিকুর রহমান; সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব খান ফারুক, ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রওশন ইয়াজদানী, মেঘনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক তারিকুর রউফ, রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মীর্জা হাসান, ময়মনসিংহ বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম রায়হান উদ্দিন, তথ্য ও গণমাধ্যম সম্পাদক মুহাম্মদ উল্লাহ মধু, শিক্ষা সম্পাদক অধ্যাপক বরুন ভট্টাচার্য্য, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক তাজুল ইসলাম, গবেষণা, পরিকল্পনা ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক আজিজুর রহমান ভূঁইয়া মজনুসহ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যবৃন্দ।

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়