যান চলাচল শুরু পদ্মা সেতু দিয়ে

প্রকাশিত: জুন ২৬, ২০২২, ১১:২৭ দুপুর
আপডেট: জুন ২৭, ২০২২, ০২:০৪ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর রোববার (২৬ জুন) সকাল ৬টা থেকে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে পদ্মা সেতু।

সকালে থেকেই যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করায় টোল প্লাজাও খুলে দেওয়া হয়।

সেতুর জন্য এর আগে যানবাহনের শ্রেণি ও টোল হার চূড়ান্ত করেছে সরকার।

গত ১৭ মে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে।

টোল হারে মোটরসাইকেলের টোল ১০০ টাকা, কার ও জিপ ৭৫০ টাকা, পিকআপ এক হাজার ২০০ টাকা, মাইক্রোবাস এক হাজার ৩০০ টাকা।

ছোট বাস (৩১ আসন বা এর কম) এক হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি বাস (৩২ আসন বা এর বেশি) দুই হাজার টাকা এবং বড় বাস (৩ এক্সেল) দুই হাজার ৪০০ টাকা।

ছোট ট্রাক (৫ টন পর্যন্ত) এক হাজার ৬০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৫ টনের অধিক থেকে ৮ টন পর্যন্ত) দুই হাজার ১০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক (৮ টনের অধিক থেকে ১১ টন পর্যন্ত) দুই হাজার ৮০০ টাকা, ট্রাক (৩ এক্সেল পর্যন্ত) পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা, ট্রেইলার (৪ এক্সেল পর্যন্ত) ছয় হাজার টাকা।

জনস্বার্থে এ আদেশ পদ্মা বহুমুখী সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্তকরণের তারিখ থেকে কার্যকর হবে বলে জানানো হয়। তবে নিরাপত্তা ও স্থায়িত্ব রক্ষার্থে এ সেতু ব্যবহারকারীদের নির্দেশনা দিয়েছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার গণবিজ্ঞপ্তি দিয়ে জারি করা নির্দেশনায় বলা হয়, ২৫ জুন জাতির স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন এবং ২৬ জুন সকাল ৬টা থেকে সরকার নির্ধারিত টোল প্রদান সাপেক্ষে সেতু পারাপার হওয়া যাবে। 

পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা ও স্থায়িত্ব রক্ষার্থে এ সেতু ব্যবহারকারীদের নির্দেশনা- পদ্মা সেতুর ওপর অনুমোদিত গতিসীমা ৬০ কিলোমিটার/ঘণ্টা; পদ্মা সেতুর ওপর যে কোন ধরণের যানবাহন দাঁড়ানো ও যানবাহন থেকে নেমে সেতুর পরে দাঁড়িয়ে ছবি তোলা/হাঁটা সম্পূর্ণ নিষেধ; বিশেষভাবে জানানো যাচ্ছে যে, তিন চাকা বিশিষ্ট যানবাহন (রিক্সা, ভ্যান, সিএনজি, অটো রিক্সা ইত্যাদি), পায়ে হেঁটে, সাইকেল বা নন-মটোরাইজড গাড়ি যোগে সেতু পারাপার হওয়া যাবে না; গাড়ীর বডির চেয়ে বেশি চওড়া এবং ৫.৭ মিটার উচ্চতার চেয়ে বেশি উচ্চতার মালামালসহ যানবাহন সেতুর উপর দিয়ে পারাপার করা যাবে না; সেতুর ওপরে কোন ধরণের ময়লা ফেলা যাবে না।

পদ্মা সেতু একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় স্থাপনা বিধায় সেতু পারাপারে সর্বসাধারণকে উপরোক্ত নির্দেশনা মেনে চলার জন্য অনুরোধ হয়েছে। 

 

সড়ক ও সেতুর ক্ষতি কমাতে নির্ধারিত ওজন সীমা মেনে চলারও আহ্বান জানানো হয়েছে। 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়