তিন সংগঠনের কর্মীরা মন্দিরে কোরআন রেখেছে

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০৩:২০ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২১

জামায়াত, বিএনপি ও ছাত্রদলের কর্মীদের দিয়ে মন্দিরে কোরআন রেখেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসেন।

রোববার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য বলেন।

স্বাধীন দেশে কোনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম করতে দেয়া হবে না এবং কার নির্দেশে এই ঘটনা ঘটেছে তা জনগণের সামনে উন্মুক্ত করতে হবে বলেও দাবি জানান তিনি।
ইসমাইল হোসেন বলেন, বিদেশে বসে কাউকে যড়যন্ত্র করতে দেয়া হবে না এবং আমানউল্লাহ আমানসহ অবিলম্বে বিএনপি নেতাদের গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয় সমাবেশ থেকে।
বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের রোল মডেল তখন দেশকে সাম্প্রদায়িক করার চেষ্টা চলছে। সাধারণ মানুষের রক্ত নিয়ে যারা হোলি খেলতে চায় তাদের ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন বক্তারা।
আরও পড়ুন: যেভাবে ধরা পড়লেন ইকবাল
প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় পূজায় কুমিল্লার নানুয়ার দীঘিরপাড়ের অস্থায়ী একটি পূজামণ্ডপে মুসলিম সম্প্রদায়ের পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার জেরে দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা সৃষ্টি হয়। অনেক স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মন্দির, ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করা হয়।
কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনাটি তদন্ত করতে গিয়ে কয়েকট স্থানের সিসিটিভি’র ভিডিও ফুটেজ পুলিশের হাতে আসে। পরবর্তীতে সিসিটিভি’র ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণের মাধ্যমে এ ঘটনায় সম্পৃক্ত ইকবাল হোসেন নামে এক যুবককে শনাক্ত করে পুলিশ।