টিউশনের ৫শ’ টাকায় সফল আসমার গল্প

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৫, ২০২২, ০৪:১৪ দুপুর
আপডেট: নভেম্বর ২৫, ২০২২, ০৪:১৪ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

নিজের আলোয় ডেস্ক : টিউশনের ৫শ’ টাকা বিনিয়োগ করেই সফল হয়েছেন আসমা। এজন্য বেছে নিয়েছিলেন করোনার সময়। করোনার লকডাউনকে কাজে লাগিয়ে অনলাইনেই হয়ে উঠেন উদ্যোক্তা। তবে শুরুটা সহজ ছিল না। বার বার চেষ্টা করেও পুঁজির কারণে ব্যবসা শুরু করতে পারছিলেন না। শেষ পর্যন্ত টিউশনির টাকা থেকে জমানো মাত্র কয়েকশ’ টাকাই আসমাকে এনে দিয়েছে সফলতা তার নামের আগে যুক্ত করেছে উদ্যোক্তা।

বর্তমানে ফেসবুক পেজ ‘ঐড়সবষু ঋড়ড়ফ’ ও ‘ইষড়পশবৎ গবষধ’র মাধ্যমে ঘরে বসেই আয়ের পথ করে নিয়েছেন। নিজ জেলার ঐতিহ্যবাহী পোশাক এবং নিজের হাতে তৈরি সেমাইয়ে দারুণ চলছে তার ব্যবসা।

গ্রাম্য চিকিৎসক বাবা এবং গৃহিণী মায়ের ছয় সন্তানের মধ্যে পঞ্চম আসমা খাতুন। নেত্রকোণার কলমাকান্দা উপজেলার এক অজপাড়াগাঁয়ে জন্ম তার। সেখানেই বড় হয়েছেন। ডিগ্রি পাস করেছেন ঢাকার সিদ্ধেশ্বরী ডিগ্রি কলেজ থেকে।

বিয়ের পর সন্তানেরা বড় হতে থাকলে ধীরে ধীরে খরচ বাড়তে থাকে। স্বামী প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করেন, বেতন খুব একটা বেশি না। আসমা খেয়াল করেন, সংসারের খরচ সামলাতে স্বামী হিমশিম খাচ্ছেন। চিন্তা করেন কিছু করা দরকার। সেই চিন্তা থেকে একটা স্কুলে চাকরি শুরু করেন। কয়েকটা টিউশনও যোগাড় করে নেন। কিন্তু সংসার, ছেলেমেয়ের স্কুল, কোচিংয়ে দৌড়াদৌড়ি, নিজের স্কুল, টিউশন, আবার ছেলেমেয়ের পড়াশোনা সবকিছু একা হাতে কুলিয়ে উঠতে পারছিলেন না।

আসমা খাতুন জানান, তিনি একটি বাড়ির ৭তলায় থাকতেন। লিফট না থাকায় দিনে ৪/৫ বার সিঁড়ি দিয়ে নামা উঠা করতে হত। তারপর জব ছেড়ে দিলাম, টিউশনিটা শুধু রাখেন। বাসায় তেমন কেউ ছিলেন না যার কাছে সন্তানদের রেখে কাজে যাবেন। দুপুরে ওদের খাইয়ে, ঘুম পাড়িয়ে আসমা টিউশনিতে যেতেন। ওদের ঘরে তালা দিয়ে রেখে যেতে হতো। বাচ্চাদের বাবা তাড়াতাড়ি অফিস থেকে চলে আসতেন। কিন্তু তবুও দুই ঘন্টা ওরা একা থাকতো ঘরে। কিন্তু কিছু করার ছিল না। কিন্তু বাচ্চাদের সমস্যার কথা ভেবে ঘরে বসে কিছু করার ভাবনা আসে তার ।

ধীরে ধীরে অনলাইন বিজনেস নিয়ে কিছুটা জেনে নেন। ২০১৯ সালে অনলাইনে বিজনেস শুরুর কথা ভাবেন। ভালো মোবাইল ছিল না তার। নিজের একটা ডিপিএস ভেঙে একটা মোবাইল কিনলেন। কিছু পোশাক নিয়ে আসলেন। সাথে সাথে পেজও খুলে নেন। কিনে আনা পোশাকগুলোর ছবি আপলোড দিলেন, কিন্তু কোন সাড়া পান না বহুদিন। তখন উই প¬াটফর্মের দেখা পেলেন। রাজিব নামে এক ভদ্রলোকের খোঁজ পেলেন। তিনি ছিলেন গ্রুপের মেন্টর।

উইতে দ্রুত যোগ দেন আসমা। অনলাইন আড্ডাগুলো থেকে পেজ ও বিজনেস বিষয়ে অনেককিছু শিখতে পারেন। সেই শিক্ষা থেকে পেজ ডোমেইন কিনে নিলেন। কিন্তু কোন সেল নেই তখনও। ধৈর্য্য ধরে লেগে থাকলেন বিজনেস শেখার জন্য। অন্যদের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প শুনতেন। স্কুল, কোচিংয়ে হেঁটে গিয়ে সেই টাকা জমিয়ে অনলাইন আড্ডায় অংশ নিতেন। ধীরে ধীরে বিজনেস থেকে হয়ে উঠলাম উদ্যোক্তা। টিউশনের ৫০০ টাকা দিয়ে হাতে তৈরি সেমাই তৈরি করে পরিচিতি পেলেন সেমাই আপু হিসেবে। উদ্যোক্তা জীবনের গল্পটা এভাবেই শুরু হয় আসমার।

উদ্যোগ সম্পর্কে আসমা জানান, অনেকে হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে তুলে ধরছিলেন, নিজের জেলার বিখ্যাত পোশাক বা খাদ্য নিয়ে কাজ করছিলেন অনেকে। এগুলো দেখে অনেকটা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। সেই থেকে আসমাও চেয়েছিলেন ট্র্যাডিশনাল পোশাকগুলো নিয়ে কাজ করার। সবার সামনে নিজেদের ঐতিহ্যকে তুলে ধরার। এই চিন্তা ভাবনা থেকেই তার উদ্যোগ।

তিনি বিজনেস শুরু করেছিলেন শেয়ারে। তার সাথে তার এক নিকটাত্মীয় বিনিয়োগ করেছিলেন। করোনার সময় তিনি আর থাকেননি। দু’জন মিলে ১০ হাজার টাকা দিয়ে শুরু করেছিলেন। নিকটাত্মীয় ব্যবসা থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিলে আসমা খাতুনও প্রায় এক বছর কাজ বন্ধ রেখেছিলেন। পরে আবার করোনার মধ্যেই শুরু করে খাবারের দিকে একটু বেশি ফোকাস দেন। “আবার শুরু করেন একদম শূন্য হাতে। খাবারে তেমন ইনভেস্ট করতে হয়নি।

এখন উদ্যোক্তা হাতে তৈরি লাচ্ছা সেমাইয়ের সাথে ফ্রোজেন ফুড, রেগুলার ফুড, আচার, পিঠা, পায়েস, ঝালমুড়ির মশলা এ সব নিয়ে কাজ করছেন। থ্রি-পিস, শাড়ি, বিছানার চাদরও রয়েছে আসমা খাতুন কালেকশনে। কোন কর্মী বা ফ্যাক্টরি নেই। সম্পূর্ণ হোম মেড সবকিছু, হাইজিন মেইনটেইন করেন সর্বোচ্চ।

আসমার প্রতিষ্ঠান অনলাইনে একটা পরিচিতি পেয়েছে। ধীরে ধীরে এ পরিচিতি আরও বাড়বে আশা করেন তিনি। “যেহেতু শূন্য হাতে শুরু, তাই সবটাই আয়ের মধ্যে পড়ে। সব মাসে সমান আয় হয় না, কোন মাসে বেশি, কোন মাসে কম। তবে গড়ে ২০ হাজার আসে। নিজের প্রোফাইলে, বিভিন্ন গ্রুপে পণ্যের পরিচিতি তুলে ধরেছেন। এভাবেই ক্রেতারা তাদের প্রয়োজনীয় পণ্য নিতে পেজে ও ইনবক্সে অর্ডার দিয়ে থাকেন। কুরিয়ারের মাধ্যমে সেটা ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। দেশের ভেতরে সবগুলো জেলাতেই আমার পণ্য কুরিয়ারের মাধ্যমে যাচ্ছে ।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় পেজ দুটি আরও বড় পরিসরে সবার সামনে নিয়ে আসার ইচ্ছা আছে তার। 

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়